মেনু নির্বাচন করুন

কাশিল ইউনিয়নের ইতিহাস

১) কাশিল: এই গ্রামটির মাঝ দিয়ে চলে গেছে ঝিনাই নদী। ঝিনাই  নদীর দুই পাড়ে প্রচুর কাশবন ছিল। আর গাছ- গাছালি ও ছিল প্রচুর কাক। কাশবন ও কাকের নাম অনুসারে গ্রামের নাম কাশিল হয়ে যায় কাশিল। তথ্য: ফজলুল হক জমাদার, প্রধান শিক্ষক, কেবি এন উচ্চ বিদ্যালয়।

 

২) বিয়ালা: একাধিক বিলের মধ্যে  প্রায় সারা বছর গ্রামটি ভেসে থাকতো। শুস্ক মৌসুমে মানুষ ক্ষেতের আইল দিয়ে চলাফেরা করতো। বিল এবং আইলের সংমিশ্রনে গ্রামের নাম হয় বিয়ালা।

 

৩) বাথুলী সাদী: ঝিনাই নদীর তীব্র ভাঙন এক সময় মোড় নিয়ে এই গ্রামের দিকে আসতে থাকে। পরে  এলাকার মানুষ বিশাল বাঁধ নির্মাণ করে নদী ভাঙনের মোড় ঘুরিয়ে দেয়। এই বাধের কারণে গ্রামের নাম হয় বাথুলী। পরবর্তীতে এই গ্রামে এক পরিবারের আবিরভাব ঘটে আফগানস্থান থেকে। সেই পরিবারে জন্ম হয় বিখ্যাত এক লোক তার নাম সাদী খাঁন। দূর- দূরান্তের মানুষ সাদী খাঁনের বাথুলী বাথুলী হিসেবে এ গ্রামকে চিনতো। পরে বাথুলীর সাথে সাদী যোগ হয়ে গ্রামের নাম হয় বাথুলী সাদী।

 

৪) পিচুড়ী: এগ্রামে প্রচুড়গাছ-গাছালি ছিল। এসব গাছে পেচাঁ ও  টিয়ার পাখির বসবাস ছিল।  টিয়া ও পেচাঁর ডাকের শব্দে এই নীরব গ্রামটি কোলাহলে ভরা ছিল। টিয়ার  ও পেচারডাকের কারণে এবং এদের অবস্থ‍ানের  জন্য গ্রামটির নাম হয় পিচুটি। পরে সংস্করণ হয়ে নাম হয় পিচুড়ী।

 

 

তথ্য আপলোডের কাজ চলমান............